ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা – ব্রহ্ম পুরাণ – পৃথ্বীরাজ সেন

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথাঃরাজসিক মহাপুরাণের মধ্যে ব্রহ্মপুরাণ একটি। পুরাকালে এক সময় প্রজাপতি দক্ষসহ বহু মুনি ঋষি পৃথিবীর রহস্য জানবার জন্য ব্রহ্মার কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করলেনকেমন করে পৃথিবীর সৃষ্টি হল?

পৃথিবীতে প্রাণীর সৃষ্টিই কেমন করে হল? কেমন করে কোন্ কোন্ স্থান তীর্থক্ষেত্রে পরিণত হল?

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা - ব্রহ্ম পুরাণ - পৃথ্বীরাজ সেন

ভগবানের নাভিকমল থেকে ব্রহ্মার সৃষ্টি। সেই ব্রহ্মাই এই জগতের সৃষ্টিকর্তা বিধাতা। কাজেই তিনি সকল সৃষ্টির রহস্য জানেন।

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা – ব্রহ্ম পুরাণ – পৃথ্বীরাজ সেন

কোন্ কোন্ রাজা কেমন প্রতাপশালী ছিলেন, কিভাবে রাজা প্রমাণ করতেন, কেমন করে পৃথিবী থেকে অত্যাচারীর বিনাশ হয়েছে, বহু বিষয়ে তিনি অবগত ছিলেন।

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা - ব্রহ্ম পুরাণ - পৃথ্বীরাজ সেন

আর মুনি ঋষিদের কৌতূহল পূর্ণ জিজ্ঞাসায় সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মদেব সৃষ্টির বিবরণ এসব ঋষিগণের সামনে প্রকাশ করেছেন। তাই এই পুরাণ ব্রহ্মপুরাণ নামে খ্যাত।

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা - ব্রহ্ম পুরাণ - পৃথ্বীরাজ সেন

প্রথমে ব্যাসদেব এই ব্রহ্মপুরাণ রচনা করেন। তারপর তিনি তাঁর শিষ্য লোমহর্ষণকে শিশজ দেন। পরবর্তীকালে সেই লোমহর্ষণ সূত নৈমিষারণ্যে যজ্ঞাচারী সেই জ্ঞান দান করেন মুনিগণের সামনে এই পুরাণের কাহিনী যথাযথভাবে বর্ণনা করেন।

ব্ৰহ্মপুরাণের সৃষ্টির কথা - ব্রহ্ম পুরাণ - পৃথ্বীরাজ সেন

আরও পড়ুনঃ

পাৰ্বতীর জন্ম – কালিকা পুরাণ

নরকের পুত্রোৎপত্তি – কালিকা পুরাণ

নরকের চরিত্র – কালিকা পুরাণ

নরকের পিতৃ-দর্শন – কালিকা পুরাণ

নরকাসুরের উৎপত্তি – কালিকা পুরাণ

 

মন্তব্য করুন